ঢাকাThursday , 12 October 2023
  1. অন্যান্য খবর
  2. অর্থনীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ক্যাম্পাস
  6. খেলা
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. তথ্যপ্রযুক্তি
  10. ধর্ম
  11. বিনোদন
  12. মতামত
  13. রাজনীতি
  14. লাইফস্টাইল
  15. শিক্ষা

নবীজির আদর্শ হোক জীবনের পাথেয়

Fazley Rabby
October 12, 2023 11:22 am
Link Copied!

প্রতি বছর ১২ রবিউল আউয়াল সারা বিশ্বের মুসলমানরা নতুন করে তাঁর আদর্শ অনুসরণ ও দীনের পথে অবিচল থাকার শপথ ব্যক্ত করেন। কারণ সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানব মহানবী (স.)-এর আদর্শ অনুসরণেই রয়েছে মানবতার মুক্তি। এজন্য প্রত্যেক মুমিনের জীবনের একান্ত পাথেয় হওয়া উচিত প্রিয়নবীর আদর্শ।

মহান আল্লাহ পবিত্র কোরআনে ইরশাদ করেছেন- ‘অবশ্যই তোমাদের জন্য রয়েছে রাসুলুল্লাহর মধ্যে উত্তম আদর্শ..’ (সুরা আহজাব: ২১)। অপর আয়াতে আল্লাহ তায়ালা বলেন- ‘বলুন, হে মানবজাতি! নিশ্চয়ই আমি তোমাদের সবার জন্য আল্লাহর রাসুল হিসেবে আবির্ভূত হয়েছি..।’(সুরা আরাফ: ১৫৮)

তাই মানবতার মুক্তির দূত হজরত মুহাম্মদ (স.) হলেন সব মানুষের নবী, বিশ্বনবী। জাতি, ধর্ম, বর্ণ, গোত্র, সম্প্রদায়, দেশ-কাল নির্বিশেষে তিনি হলেন সব মানুষের জন্য মহান আল্লাহ প্রেরিত সর্বশ্রেষ্ঠ মহাপুরুষ; যিনি বিশ্বমানবতার জন্য সর্বোত্তম আদর্শের মূর্ত প্রতীক।

মানবজীবনের সব দিক ও বিভাগে যাঁকে অনুসরণ করলে মহান আল্লাহর নৈকট্য ও ভালোবাসা অর্জিত হবে, তিনি হলেন সেই সর্বোত্তম আদর্শ বিশ্বনবী (স.)। ইরশাদ হচ্ছে- ‘হে রাসুল, আপনি বলে দিন- তোমরা যদি আল্লাহর ভালোবাসা চাও তাহলে আমাকে অনুসরণ করো; তবেই আল্লাহ তোমাদের ভালোবাসবেন (সুরা ইমরান :৩১)

আল্লাহ তায়ালা তাঁকে রাহমাতুল্লিল আলামিন বা সারা বিশ্বের রহমতস্বরূপ দুনিয়ায় পাঠান। ইরশাদ হয়েছে— ‘হে নবী আমি আপনাকে সারা বিশ্বের জন্য রহমত হিসেবে প্রেরণ করেছি।’ (সুরা আম্বিয়া: ১০৭)

এজন্যই মহানবী (স.) যেদিন, যে মুহূর্তে পৃথিবীতে তাশরিফ এনেছিলেন, সেদিন ও সেই মুহূর্তটি বিশ্বজগতের জন্য সর্বশ্রেষ্ঠ দিন হিসেবে বিবেচিত। এদিন প্রতিক্ষণেই বিশ্বের প্রতি প্রান্তে অযুত কণ্ঠে প্রতিধ্বনিত হয় তাঁর মহিমাগাথা। মহানবী (স.) বিশ্বমানবতার প্রতীক ও সত্য-সুন্দরের বাণীবাহক। তাঁর কারণেই আরবজাহানে নবজীবন সঞ্চারিত হয়েছিল, নতুন সংস্কৃতির উন্মেষ, নবীন সভ্যতার গোড়াপত্তন হয়েছিল এবং উদ্ভব ঘটে একটি নতুন জীবনব্যবস্থার। নানা গোত্রে বিভক্ত, কলহপ্রিয়, অধঃপতিত, যাযাবর ও বর্বর আরব জাতি একটি সুমহান জাতিতে পরিণত হয় তাঁর আদর্শ ও চারিত্রিক মাধুর্যের গুণে। তাঁর সর্বোৎকৃষ্ট চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে মহান স্রষ্টার ঘোষণা- ‘হে রাসুল, আপনি সর্বোন্নত চারিত্রিক মাধুর্যের ওপর প্রতিষ্ঠিত আছেন।’ (সুরা আল কলম: ৪)

তাই আমাদেরকেও সর্বোত্তম চরিত্রের অধিকারী এই মহামানবের আদর্শে বলিয়ান হতে হবে। উৎপীড়িত ও অত্যাচারিত মানুষের প্রকৃত বন্ধু ও দরদি ছিলেন তিনি। অনাথ, দাস, কন্যাশিশু, বিধবা নারী ও গরিব-দুঃখীর দুঃখমোচনে তিনি সদা তৎপর থাকতেন। ইসলামপূর্ব সময়েই তিনি সব মানুষের প্রিয়ভাজন হয়ে ওঠেন। ৬১০ খ্রিস্টাব্দে হেরা গুহায় নবুয়তপ্রাপ্তির আগেই তাঁকে সবাই আল আমিন (বিশ্বস্ত) ও আস-সাদিক (সত্যবাদী) উপাধিতে ভূষিত করেন।

একবিংশ শতাব্দীতে আমরা নিরাপত্তাহীনতাসহ নানা সংকটে শান্তির অন্বেষায় দিশাহারা। দেশে দেশে মানুষ মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত। ব্যাহত হচ্ছে শান্তি, বাড়ছে সন্ত্রাস। একমাত্র মহানবী (স.)-এর দেখানো পথ অনুসরণের মধ্য দিয়ে আমরা এই হানাহানির পথ থেকে সরে আসতে পারি। গড়ে তুলতে পারি এক সুন্দর পৃথিবী। আমাদের মনে রাখতে হবে, সব ধরনের নৈরাশ্য ও ফ্যাসাদ বা সন্ত্রাস দূর করতেই ইসলামের আবির্ভাব। এই কঠিন সময় নবী (স.)-এর শিক্ষা ও আদর্শই আমাদের সঠিক পথ দেখাতে পারে। নবী (স.)-এর পদাঙ্ক অনুসরণের মধ্যেই আমাদের যাবতীয় মুক্তি, সমৃদ্ধি ও কল্যাণ নিহিত।

সুতরাং শুধু আনুষ্ঠানিকতা নয়, নবীজি (স.)-এর বাণী হৃদয়ে ধারণ করে তা মেনে চলার মধ্যেই রয়েছে এই দিবস উদযাপনের প্রকৃত তাৎপর্য। আল্লাহ তাওফিক দিন।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।